Dr. Bashir Mahmud Ellias's Blog

Know Thyself

Rice is the worst enemy of mankind

Leave a comment

Rice is the worst enemy of mankind

What is the main obstacle of our country’s (Bangladesh) development (-prosperity- improvement-betterment) ? If it is asked, certainly different people will give different answer. But if you analyze it from the view-point of medical science, then I will say rice is our worst national enemy. Rice is such a prominent food item which contains excessive amount of sugar (starch/carbohydrate). So it hastens our physical growth & we become adult (mature) very quickly. That’s why we get married promptly & start having babies more speedily. Sometimes it seems to me that just a few days ago a guy who himself was a baby, now he is completely exhausted (-fagged-worn-out) being a father or grandfather of many children. That means eating rice is the root cause of population explosion in such a dreadful manner. If you don’t believe you can look on the rice-eating countries, like china-india-indonesia-Bangladesh-thailand-japan-korea, all of them are going through population problem in the highest degree. For the unimaginable explosion of population, government become a failure even spending billions of dollar annually to provide our basic needs like food, cloth, residence, education & health.

Rice not only make us adult (mature) very quickly, but also rapidly converts us to old guys. As a result we become incompetent (& worthless) for any jobs and turn to a burden to the family (& thus to the society & country). As because in old age we lack energy to work & various diseases invade our body & mind. It is true that sugar (starch/carbohydrate) is the only source of our physical energy & we can not survive without it. But it is also true that excessive supply of sugar (starch/carbohydrate) is horribly harmful for us. It can be reasonably compared to water. We all know that normal water is the root cause of our live & flood (i.e. excess) water causes our death. In our country almost ninety percent of people found to be have gastric ulcer who visits doctor. Excessive amount of sugar (starch/carbohydrate) in rice causes flatulency (gas) in the stomach, gas formation tends to the acidity & acidity leads to ulcer. Perhaps nobody will deny the fact that rice is the root cause of diabetes (I mean from the imbalance of carbohydrate produced by rice in our body for many years). You will not find gastric ulcer & diabetes epidemic in those countries where (wheat) bread is the main food item. Now I am to say that this poor country has to waste millions of dollars every year to import the medicines only for this two diseases.

Some may say that most of the medicines of this two diseases are manufactured in our country. Yea, that’s right ; but raw materials, machinery, packing items all are have to import. There are many pathological test done to diagnose these diseases and these diagnostic machineries & chemical reagents are also have to import spending lot of foreign currencies. Yet we can ignore the squandering of invaluable time (working hour) in the doctor’s chamber, hospital & sick-bed. Not only these two diseases but hundreds of diseases can be named having link with this notorious rice. According to the physicians, there is no difference between eating a handful of rice & a handful of sugar. You may say that laziness is the main obstacle in the way of our country’s development rather than rice. Then I will say that rice creates laziness in our body & mind. The excessive amount of sugar/carbohydrate in rice is the real cause of laziness. As it is usually seen we become exhausted from least exertion, excessive amount of sugar in rice is responsible for this situation.

As rice contains immoderate amount of sugar & after eating rice it is digested quickly & the principal ingredient (sugar) is quickly absorbed in our bloodstream & the sugar level suddenly become high, so we begin to feel drowsy, weak & lazy like a diabetic patient. You can say, Japanese (, Chinese & Koreans) are also rice eater & still they are not lazy (like us); on the contrary they are very much active & hardworking & they don’t become tired from little labor. Yea, in this regard they got some climatic advantage. They don’t sweat so much even during hard work because of their cold weather, as we do. As a result they don’t break-away easily from little labor like us. Moreover people of Mongolian origin (flat-nose) are anthropologically very much energetic & industrious. On the contrary we sweat much because of our hot & damp weather and that’s why we get easily tired, exhausted through losing essential mineral salts with sweats. So excess sugar in rice & excess sweating both are equally responsible for our laziness, debility & inactivity. Some pundits oppose that not rice but excessive eating of rice is injurious to health. But the problem is that rice has such a peculiar uncontrollable temptation to eat excess that few of us has the power to knock out such seduction. Contrarily it is very difficult for anybody to eat excess of wheat bread. As because rice is soft & wet (that’s why easy to eat) and wheat bread is hard & dry.

Somebody may say that poverty is our most vital problem. If you think little deeply then you will realize that rice is the basic cause of our incurable poverty. As because if we fill our stomach with rice unto the nose, it will digest & absorbed so quickly that within two hours we will become hungry again. So we have to eat too much & our expenditure on food purpose become high & it force us to reduce expenditure on other fields (like health, education, infrastructure etc) . Look at our physical strength or (slender) physical structure ; both are ridiculous, pathetic. And the notorious (black sheep) rice is responsible for this poor status. You will obviously understand the demerits of rice if you compare the physical structure of rice-eater Indians, Chinese & Indonesians with wheat-eater Arabian, European & American. You will certainly notice that players of rice-eating countries can not do much well in the strenuous games (like football, cricket, marathon, wrestling etc). The reason is same and that is if we eat rice our blood sugar level (energy) rises to the highest level for a short time & then it again reduce to an alarmingly lowest position.

On the contrary, if you eat wheat (bread) it will digest steadily taking much time & that’s why your blood sugar level will not suddenly jump to highest level for a little while. As a result your calorie/ energy level will remain in standard position comparatively for longer time. Like rice it does not suddenly rise to the highest level & then fall to the lowest level. If we do not start eating wheat bread quickly in stead of rice, then the millions of dollars our government is wasting every year for family planning, will have to continue for how many years Allah knows ! On the contrary, governments of the wheat-eater countries (like Middle east, Australia, Europe, America, Russia etc) are facing failure to increase their population even offering billion dollars bonus to their couples. Some analyst thinks that poverty & ignorance are responsible for overpopulation, not rice. If you look at the Arab countries you will see that their education rate very low & still they are free from overpopulation. And there was no population problem even (a few decades ago) when they were poor.

Some people think that illiteracy is the main problem in the way of our national prosperity. In this point we can say that poverty is responsible for illiteracy, over-population is responsible for poverty & rice is responsible for over-population. Recently many people are claiming that corruption is our chief national problem. Think in this way that poverty-illiteracy-unawareness is responsible for corruption & in our country the primary cause of poverty & illiteracy is overpopulation. Population not being a blessing rather has become a curse & rice is mainly responsible for this kind of consequence. Some savant says that Japan is an overpopulated country and still there is no problem as their people are highly skilled. Really Japan is an exception & exception can not be taken as a formula. So we have to entirely give up the habit of eating rice from right now & start having wheat flour bread in order to build a healthy & happy nation. (Common oat (avena sativa) flour is more healthier than wheat flour. Because one of the greatest vitamines are usually made from its juice) I know this is a difficult job and it can not be done overnight but we must try our best.

Another problem is that our women community are more interested in cooking rice than baking wheat bread. As because cooking rice is very easy but baking wheat bread is much hard. At the same time women should think that to eat rice we need to cook many delicious curry but to eat wheat bread these are not essential. Only potato fry or pulse’s soup is enough. At this cost we can buy seasonal fruits with the money usually spent for vegetables. That would be also better for our health. As the vegetables price is sky-high, it would be wise to consume one kilogram fruits in lieu of three kilogram vegetables. As we know vegetables contain less nutrient & yet most of them are spoiled by heat during cooking. To save our women from the hazard of baking wheat bread, the owner of hotel, restaurant & food industry can play a vital role. They have to given up the habit of preparing incredibly small & thin bread fried with six month old burnt oil & rather have to begin making mega-size wheat bread like middle east countries, one of which is enough for an entire family. Moreover we can make wheat bread machine available in every family like Europe & America. Some may argue that wheat flour is more costly than rice, but at the same time they should also consider the facts of various diseases like diabetes & premature senility.

According to the experts, wheat flour’s price can be easily reduced by mixing corn maze with it. We should also think about huge amount of water needed to produce paddy (rice), which will be a real problem in our country in near future (also for many other countries). On the contrary so much water is not necessary for the cultivation of wheat. To acquire hundred percent benefit from eating wheat bread we have to consume unfiltered natural flour ; because the food companies (market packed flour) greatly reduce its nutrient quality by excessively straining it (to make flour white). So our request to the government is that govt. should encourage people to produce & consume wheat every way (and discourage the rice). If it is necessary we can depend on & produce genetically modified (GM) wheat. As GM food has gained acceptance in Europe & America, then we should not remain hesitated about it. Moreover our holy prophet (pbuh) has given his opinion in favor of genetically modified (GM) food. In one of his sayings he said, ‘in the last age there will be superabundance of food grains’. That means rice, wheat, onion, garlic, fruits, vegetables etc of mega-size will be invented & people will be obliged to consume those (to get ride of famine).

Dr. Bashir Mahmud Ellias
Author, Design specialist, Homeo consultant
chamber : Jagarani homeo hall
47/4 Toyenabi circular road (2nd flr),
(near ittefaq crossing & studio 27)
Motijheel, Dhaka,
Bangladesh.
Mob : +880-01916038527
E-mail : Bashirmahmudellias@hotmail.com
Website : http://bashirmahmudellias.blogspot.com

ভাত মানবজাতির সবচেয়ে বড় শত্রু

আমাদের জাতীয় জীবনের উন্নতি-অগ্রগতি-সমৃদ্ধির পথে সবচেয়ে বড় বাধা কি জিজ্ঞাসা করলে একেক জন একেক উত্তর দিবেন। কিন’ চিকিৎসা বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে যদি বিবেচনা করেন, তবে আমি বলব ভাতই আমাদের এক নম্বর জাতীয় শত্রু। চাল বা ভাত এমন একটি প্রধান খাদ্য যাতে চিনি (শর্করা/ শ্বেতসার/কাবোর্হাইড্রেট) বেশী পরিমাণে থাকে। ফলে আমাদের শারীরিক বৃদ্ধি বা যৌবন প্রাপ্তি ঘটে খুবই দ্রুতগতিতে। ফলে আমরা বিয়ে করি দ্রুত এবং বাচ্চা-কাচ্চা উৎপাদন করি দ্রুত। মনে হয় সেদিন যাকে দেখলাম হাফ-পেন্ট পড়ে খেলছে, দুদিন পরই দেখি বাচ্চা-কাচ্চার মাতা-পিতা হয়ে সে অবসন্ন হয়ে পড়ছে। অর্থাৎ ভাত খাওয়া আমাদের ভয়ঙ্কর গতিতে জনসংখ্যা বৃদ্ধির একটি বড় মূল কারণ। বিশ্বাস না হলে চীন-ভারত-ইন্দোনেশিয়া-জাপান-কোরিয়া প্রভৃতি ভাত খাওয়া দেশের দিকে তাকাতে পারেন, প্রতিটি দেশই জনসংখ্যার ভারে বিপযর্স্ত। জনসংখ্যার কল্পনাতীত বিস্ফোরণের কারণে সরকার প্রতিবছর হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় করেও আমাদের সকলের খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা ও চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারছে না। ভাত আমাদের কেবল দ্রুত যৌবন প্রাপ্তিই ঘটায় না, পাশাপাশি আমাদেরকে ফটাফট্‌ বুড়ো-বুড়িতেও রূপান্তরিত করে থাকে। ফলে আমরা তাড়াতাড়ি অকর্মণ্য হয়ে পরিবার-সমাজ-দেশের বোঝায় পরিণত হয়ে যাই। কেননা বুড়ো হলে একদিকে কাজ করার শক্তি কমে যায়, অন্যদিকে অসুখ-বিসুখে একেবারে কাবু করে ফেলে। এটা ঠিক যে, চিনি/শর্করা/শ্বেতসার/ কাবোর্হাইড্রেট আমাদের সকল শক্তির মূল উৎস এবং এগুলো ছাড়া আমরা অচল। আবার এটাও সত্য যে, শরীরে অতিরিক্ত (চিনি/শর্করা/শ্বেতসার) কাবোর্হাইড্রেটের সরবরাহ আমাদের জন্য ভয়ঙ্কর ক্ষতিকর। বিষয়টিকে পানির সাথে তুলনা করলে সবচেয়ে যুক্তিসঙ্গত হয়। আমরা সবাই জানি যে, স্বাভাবিক পানি আমাদের বেঁচে থাকার মূল কারণ আবার বন্যার (অতিরিক্ত) পানি আমাদের মৃত্যুর কারণ হয়ে থাকে।

আমাদের দেশে ডাক্তারদের কাছে যত লোক যায়, তাদের শতকরা ৯০ ভাগেরই দেখা যায় গ্যাস্ট্রিক আলসারের সমস্যা আছে। ভাতে থাকা অতিরিক্ত চিনি থেকেই পেটে গ্যাস হয়, গ্যাস থেকে হয় এসিডিটি এবং এসিডিটি থেকে হয় আলসার। ভাত খাওয়া (অর্থাৎ ভাত খাওয়ার মাধ্যমে বছরের পর বছর শরীরে মাত্রাতিরিক্ত চিনি সরবরাহ করা) যে ডায়াবেটিস হওয়ারও সবচেয়ে বড় কারণ, সেটি নিশ্চয় কেউ অস্বীকার করবেন না। রুটি যে-সব দেশের প্রধান খাদ্য, সে-সব দেশে খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন, সেখানে ডায়াবেটিস এবং গ্যাসট্রিক আলসারের কোন মহামারী নাই। এই পর্যায়ে বলা যায় যে, প্রতি বছর এই দুইটি মহামারী রোগের চিকিৎসার জন্য এই গরীব দেশটিকে হাজার হাজার কোটি টাকার ঔষধ বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয়। কেউ কেউ বলতে পারেন যে, এই দুটি রোগের জন্য ব্যবহৃত বেশীর ভাগ ঔষধই দেশে তৈরী হয়ে থাকে। হ্যাঁ, ঔষধগুলো দেশে তৈরী হয় বটে ; তবে ঔষধ তৈরীর যন্ত্রপাতি, ক্যামিকেল, প্যাকিং সামগ্রী ইত্যাদি সবই কিন্তু বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয়। তাছাড়া এসব রোগ নির্ণয় করার জন্য যে-সব প্যাথলজিক্যাল টেস্ট করতে হয় ; তাদের যনত্রপাতি, রিয়েজেন্ট ইত্যাদিও বিদেশ থেকে আমদানী করতে হয়। ডাক্তারের চেম্বারে বা হাসপাতালে লাইন দিয়ে বসে থাকা এবং দিনের পর দিন বিছানায় পড়ে থেকে যত মূল্যবান সময়ের অপচয় হয়, সেই কথা না হয় বাদই দিলাম। কেবল এই দুইটি রোগই নয়, ছোট-বড় আরো শত শত রোগের উৎপত্তির সাথেই এই খতরনাক ভাতের সম্পর্ক খুঁজে পাওয়া যাবে (অর্থাৎ রক্তে চিনির ভারসাম্যহীনতার)। ডাক্তারদের মতে, এক মুঠো ভাত খাওয়া আর এক মুঠো চিনি খাওয়ার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কোন পার্থক্য নাই।

আপনি যদি বলেন যে, ভাত নয় বরং অলসতাই হলো আমাদের জাতীয় উন্নয়ন এবং সমৃদ্ধির পথে প্রধান বাধা ; তবে আমি বলবো ভাতই আমাদের দেহ-মনে অলসতা সৃষ্টি করে। ভাতের মধ্যে থাকা মাত্রাতিরিক্ত চিনি / শ্বেতসার অলসতার একটি মুল কারণ। আমরা যে সামান্য একটু পরিশ্রম করলেই কাহিল হয়ে পড়ি, ভাতে থাকা মাত্রাতিরিক্ত সুগারই ইহার জন্য দায়ী। ভাতে যেহেতু প্রচুর চিনি থাকে এবং ভাত দ্রুত হজম হয়ে তার মূল খাদ্য উপাদান শোষিত হয়ে রক্তে চলে যায়, সেহেতু ভাত খাওয়ার ফলে অল্প সময়ের মধ্যেই হঠাৎ করে আমাদের রক্তে সুগারের মাত্রা অনেক বেড়ে যায় এবং আমরা ডায়াবেটিস রোগীদের মতো ঘুমঘুমভাব, দুর্বলতা, অলসতা অনুভব করতে থাকি। তবে প্রশ্ন করতে পারেন, জাপানী-কোরিয়ানরা তো ভাত খাওয়া সত্ত্বেও আমাদের মতো অলস নয় বরং কঠোর পরিশ্রমে অভ্যস্ত এবং অল্প পরিশ্রমে ক্লান্ত-শ্রান্তও হয় না। হ্যাঁ, এক্ষেত্রে আবহাওয়াগত কিছু সুবিধা তারা পেয়েছে। তাদের জলবায়ু শীত প্রধান হওয়ার কারণে যথেষ্ট পরিশ্রম করলেও তাদের শরীর ঘামায় না। ফলে তারা আমাদের মতো সামান্য পরিশ্রমেই দুর্বল হয়ে পড়ে না। আর মঙ্গোলীয়ান গোষ্টির লোকেরা (অর্থাৎ নাক বোচা মানুষরা) নৃতাত্ত্বিকভাবেই খুবই পরিশ্রমী হয়ে থাকে। পক্ষান্তরে আবহাওয়াজনিত কারণে আমাদের শরীর ঘামায় বেশী এবং ঘামের সাথে প্রয়োজনীয় খনিজ লবণ বেড়িয়ে যাওয়ার কারণে আমরা সহজেই দুর্বল হয়ে পড়ি। এক্ষেত্রে ভাত এবং ঘামানো দুটোই আমাদের অলসতা-দুর্বলতা-কর্মবিমুখতার জন্য সমানভাবে দায়ী।

কোনো কোনো পন্ডিত ব্যক্তি যুক্তি দেখান যে, পরিমাণ মতো ভাত খাওয়া ক্ষতিকর নয় বরং মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণে ভাত খাওয়াই স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কিন্তু সমস্যা হলো ভাতের মধ্যে এমনই এক অদ্ভূত দুর্দমনীয় আকর্ষণ আছে যে, ভাত খাওয়ার সময় মাত্রা মতো খাওয়ায়ই কষ্টকর বরং মাত্রাতিরিক্ত খাওয়াই সহজ। পক্ষান্তরে আটার রুটি মাত্রাতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া যে-কোরো পক্ষেই কঠিন। কেননা ভাত নরম এবং ভেজাভেজা আর রুটি শক্ত এবং শুকনা। কেউ কেউ বলবেন যে, দারিদ্রতাই আমাদের মুল সমস্যা। একটু গভীরভাবে চিন্তা করলে দেখা যাবে যে, ভাতই আমাদের দুরারোগ্য দারিদ্রের মূল কারণ। কেননা ভাত গলা পযর্ন্ত খেলেও দুই ঘণ্টার মধ্যেই হজম হয়ে যায়। ফলে (ভাত) খেতে হয় প্রচুর এবং এজন্য খাওয়ার পেছনে ব্যয় বেড়ে যাওয়ার কারণে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, অবকাঠামোগত উন্নয়ন প্রভৃতি ক্ষেত্রে আমাদেরকে বাধ্য হয়ে ব্যয় সঙ্কোচন করতে হয়। আমাদের শক্তি-সামর্থ বলুন আর (তালপাতার সেপাই মার্কা) হাস্যকর শারীরিক আকার-আকৃতিই বলুন, সবই করুণার উদ্রেক করে (যাচ্ছেতাই !)। আর ইহার জন্য দায়ী এই কুলাঙ্কার ভাত। ভাত খাওয়া চীনা, ভারতীয় আর ইন্দোনেশিয়ানদের স্বাস্থ্য দেখেন আর রুটি খাওয়া এরাবিয়ান, ইউরোপীয়ান ও আমেরিকানদের স্বাস্থ্য দেখেন, তাহলেই ভাতের মহিমা বুঝতে পারবেন। ফুটবল, ক্রিকেট ইত্যাদির মতো পরিশ্রম সাধ্য খেলাগুলোতেও দেখবেন ভাত খাওয়া দেশের ছেলে-মেয়েরা তেমন সুবিধা করতে পারে না। কারণ একটাই আর তাহলো ভাত খেলে অল্প সময়ের জন্য প্রচুর শক্তি (ক্যালরি) সাপ্লাই পাওয়া যায় ঠিকই কিন্তু তার কিছুক্ষণ পরই রক্তে ক্যালরির সাপ্লাই একেবারে বিপজ্জনকভাবে কমে যায়। পক্ষান্তরে রুটি খেলে সেটি ধীরে ধীরে হজম (অর্থাৎ রক্তে শোষিত) হয়, ফলে রক্তে এনার্জি/ ক্যালরির মাত্রা একই রকম থাকে দীর্ঘ সময় যাবত। ভাতের মতো অল্প সময়ের জন্য ভীষণ বেড়েও যায় না এবং তারপর একেবারে মুশকিলে ফালানোর মতো কমেও যায় না। আমরা যদি ভাত খাওয়া বাদ দিয়ে দ্রুত রুটি খাওয়ায় অভ্যস্ত না হই, তবে সরকার দীর্ঘদিন যাবত ফ্যামিলি প্ল্যানিংয়ের পেছনে যে প্রতি বছর হাজার হাজার কোটি টাকা অপচয় করছে, তা আরো কত যুগ চালিয়ে যেতে হবে আল্লাহ্‌ই ভালো জানেন। অথচ আরবদেশ, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা প্রভৃতি রুটি খাওয়া দেশের সরকারগুলো দম্পতিদের হাজার হাজার মিলিয়ন ডলার বোনাস দিয়েও তাদের দেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধি করতে পারছে না। কোন কোন বিশ্লেষক মনে করেন যে, ভাত নয় বরং অশিক্ষা এবং দারিদ্রের কারণে জনসংখ্যা বৃদ্ধি পায়। তাহলে আরব দেশগুলোর দিকে লক্ষ্য করুন, তাদের শিক্ষার হার অনেক কম তারপরও তাদের জনসংখ্যার বিস্ফোরণ নাই। এমনকি কয়েক দশক পূর্বে যখন তারা দরিদ্র ছিল, তখনও তাদের জনসংখ্যার কোন সমস্যা ছিল না।

অনেকে মনে করেন, অশিক্ষাই আমাদের সমৃদ্ধির পথে সবচেয়ে বড় বাধা। এক্ষেত্রে বলা যায় অভাব অশিক্ষার মূল কারণ, অভাবের মূল কারণ জনসংখ্যার লাগামহীন বৃদ্ধি এবং জনসংখ্যার লাগামহীন বৃদ্ধির মূল কারণ ভাত। ইদানীং অনেকে বলছেন যে, দুর্নীতি আমাদের প্রধান সমস্যা। ভেবে দেখুন, দুর্নীতির মূলে আছে দারিদ্র-অশিক্ষা-অসচেতনতা আর আমাদের দেশে দারিদ্র-অশিক্ষার একটি বড় কারণ হলো জনসংখ্যার বিস্ফোরণ এবং জনসংখ্যা যে আর্শিবাদ না হয়ে বিরাট সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে, তার মূলে আছে এই কমবখ্‌ত ভাত। কোন কোন বিজ্ঞ ব্যক্তি মনে করেন যে, জাপান উপযুক্ত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তার বিশাল জনসংখ্যাকে অভিশাপ থেকে আশির্বাদে রূপান্তরিত করেছে। সত্যি সত্যি জাপানের দৃষ্টান্তটি একটি উল্লেখযোগ্য ব্যতিক্রম আর ব্যতিক্রম কখনও সমাধান হতে পারে না। কাজেই রোগ-ব্যাধিমুক্ত শরীর-স্বাস্থ্য এবং সুখী-সমৃদ্ধ দেশ গঠনের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য আমাদের সকলেরই উচিত হবে এখন থেকে ভাত খাওয়া পুরোপুরি বর্জন করা এবং গমের আটার রুটি খাওয়া শুরু করা। (অবশ্য যবের আটার রুটি খাওয়াটা আরো পুষ্টিকর এবং কল্যাণকর। কেননা পৃথিবীর সবচেয়ে উত্তম একটি ভিটামিন ঔষধ যবের পাতার রস থেকে তৈরী করা হয়।) আমি জানি কাজটি খুবই কঠিন এবং রাতারাতি করা সম্ভব নয়। কিন্তু আমাদেরকে অবশ্যই আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। আরেকটি সমস্যা হলো, আমাদের নারী সমাজ রুটি পাকানোর চাইতে ভাত রান্না করতে বেশী আগ্রহী। কেননা ভাত রান্না করা খুবই সহজ কিন্তু রুটি বানানো খুবই কষ্টকর কাজ। তবে পাশাপাশি এটাও চিন্তা করে দেখতে হবে যে, ভাত খাওয়ার জন্য নানা রকমের মজাদার তরকারী রান্না করতে হয় কিন্তু রুটি খাওয়ার জন্য তার কোন দরকার নেই। রুটি খাওয়ার জন্য স্রেফ আলু ভাজি অথবা ডাল হলেই যথেষ্ট। সেক্ষেত্রে যে পয়সা দিয়ে আমরা তরকারী ক্রয় করি, তা দিয়ে আমরা দেশী-বিদেশী মৌসুমী ফল-মূল খেতে পারি। বিষয়টি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্যও হবে অধিক উপকারী।

তরকারীর যে আকাশ ছোয়া দাম, তিন কেজি করলা না খেয়ে বরং এক কেজি আপেল খাওয়া বুদ্ধিমানের কাজ হবে। কেননা একে তো শাক-সবজিতে তেমন কোন ভিটামিন থাকে না, তারপরেও যা থাকে সেগুলো আবার রান্নার সময় আগুনের তাপে নষ্ট হয়ে যায়। রুটি বানানোর ঝামেলা থেকে আমাদের নারী সমাজকে রক্ষা করার জন্য দেশের হোটেল-রেস্তোরা-খাবার দোকান মালিকদের এগিয়ে আসতে হবে। তাদেরকে বাতাসের মতো পাতলা আর ছয় মাসের পোড়া তেলে ভাজা পরোটা বানানোর অভ্যাস ছেড়ে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মতো মেগা সাইজের রুটি বানানোর তরিকা চালু করতে হবে যাতে এক রুটিতেই এক পরিবারের সকলের পেট ভরে যায়। আবার ইউরোপ-আমেরিকার মতো পাউরুটি তৈরীর মেশিন ঘরে ঘরে সহজলভ্য করা যেতে পারে। কেহ কেহ চালের চাইতে আটার দাম বেশী ইত্যাদি অজুহাত দেখাতে পারেন, কিন্তু বিস্তর অসুখ-বিসুখ আর অকাল বার্ধক্যের কথাও পাশাপাশি তাদের চিন্তা করা উচিত। আটা রুটির শতভাগ ফজিলত পেতে চাইলে আমাদেরকে আবার খোলা আটা খাওয়া শুরু করতে হবে ; কেননা যে-সব কোম্পানী প্যাকেটে করে আটা মার্কেটে ছাড়ে তারা আটাকে সাদা করার নামে আটার আসল জিনিসটাই ছেঁকে ফেলে দেয়। সরকারের নিকট আমাদের দাবী থাকবে, গম চাষকে সর্বাত্মকভাবে পৃষ্টপোষকতা প্রদান করা হউক এবং ধান চাষকে নিরুৎসাহিত করা হউক। প্রয়োজনে জেনেটিক্যালি মোডিফাইড গমের চাষ করা হউক। কেননা ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোতে জিএম ফুড স্বীকৃতি পেয়েছে ; আমাদের অযথা দ্বিধা-দন্দ্ব করে সাতপাঁচ ভেবে বসে থাকলে চলবে না। সর্বোপরি মহানবী (দঃ) ও এই জিএম ফুডের পক্ষে মতামত দিয়েছেন। কেননা এক বাণীতে তিনি বলেছিলেন যে, “আখেরী জামানায় খাদ্য-শস্যে খুবই বরকত হবে”। তার মানে হলো মেগা সাইজের চাল-গম-পেয়াজ-রসুন-ফলমুল-তরিতরকারি ইত্যাদির প্রচলন হবে এবং দুর্ভিক্ষ ঠেকাতে (জনসংখ্যার ভারে নুহ্য) মানবজাতির পক্ষে সেগুলো খাওয়া ছাড়া কোন বিকল্প থাকবে না।

ডাঃ বশীর মাহমুদ ইলিয়াস
গ্রন্থকার, ডিজাইন স্পেশালিষ্ট, ইসলাম গবেষক, হোমিও কনসালটেন্ট
চেম্বার ‍ঃ জাগরণী হোমিও হল
৪৭/৪ টয়েনবী সার্কুলার রোড (নীচতলা)
(ইত্তেফাক মোড়ের পশ্চিমে এবং স্টুডিও 27 এর সাথে)
টিকাটুলী, ঢাকা।
ফোন ঃ +৮৮০-০১৯১৬০৩৮৫২৭
E-mail : Bashirmahmudellias@hotmail.com
Website : http://bashirmahmudellias.blogspot.com
Website : https://bashirmahmudellias.wordpress.com

ক্যানসারের চিকিৎসায় ভয়ঙ্কর বিপদ
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2009/10/cancer-and-its-perilous-treatment_31.html
মানসিক রোগীদের চরম দুর্ভাগ্য
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2009/10/mental-patients-their-tradgedy.html
হৃদরোগের সবচেয়ে ভালো চিকিৎসা আছে হোমিওপ্যাথিতে
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2010/02/cardiac-diseases-their-easy-cure.html
কিডনী রোগের প্রকৃত কারণ এবং চিকিৎসা
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2009/10/kidney-diseases-their-real-cause-and.html
শিশুদের টিকা থেকে সাবধান
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2008/10/beware-of-childhood-vaccine.html
হোমিওপ্যাথিক ঔষধ ছাড়া ডায়াবেটিস নিমূর্ল হয় না
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2009/09/diabetes-and-some-hard-talks.html
হেপাটাইটিস একটি ফালতু রোগ
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2008/11/hepatitis-is-not-incurable-disease.html
প্যাথলজিক্যাল টেস্ট মারাত্মক ক্ষতিকর
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2010/04/pathological-tests-are-seriously.html
ফ্রি হোমিওপ্যাথিক ই-কনসালটেশান
Free homeopathic e-consultation
http://bashirmahmudellias.blogspot.com/2009/11/free-homeopathic-e-consultation.html

Author: bashirmahmudellias

I am an Author, Design specialist, Islamic researcher, Homeopathic consultant.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s