Dr. Bashir Mahmud Ellias's Blog

Know Thyself

Colic or abdominal pain

Leave a comment

Colic (পেট ব্যথা, শূলবেদনা) ঃ- পেট ব্যথা বলতে পেটের ভেতরে থাকা পাকস্থলী, নাড়িভুড়ি, লিভার, কিডনী, পেনক্রিয়াস, প্লীহা, গলব্লাডার ইত্যাদি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ব্যথাকে বুঝায়। পক্ষান্তরে ফুসফুস এবং হৃৎপিন্ডের ব্যথাকে বলা হয় বুকের ব্যথা। পেটের ব্যথারও সুনির্দিষ্ট কোন ঔষধ নেই। বরং ব্যথার ধরণ, ব্যথার কারণ, ব্যথার লক্ষণ ইত্যাদি বিবেচনা করে ঔষধ খেতে হবে।
Colocynthis : পেটের ব্যথা যদি শক্ত কোন কিছু দিয়ে পেটে চাপ দিলে অথবা সামনের দিকে বাঁকা হলে কমে যায়, তবে কলোসিন্তু আপনাকে সেই ব্যথা থেকে মুক্ত করবে। কলোসিনে’র ব্যথা ছুরি মারার মতো খুবই মারাত্মক ধরণের। পেটের নাড়ি-ভূড়িকে মনে হবে কেউ যেন দুটি পাথর দিয়ে পিষতেছে।
Dioscorea villosa : ডায়োস্কোরিয়া’র পেটের ব্যথা পেটে চাপ দিলে অথবা সামনের দিকে বাঁকা হইলে বৃদ্ধি পায়। ডায়োস্কোরিয়া’র ব্যথা কিছুক্ষণ পরপর বৃদ্ধি পায় এবং পেট থেকে শরীরের বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে যায়। (শিশুদের কান্না-কাটি অথবা মেজাজ দেখানোর যদি কোন কারণ খুঁজে না পান, তবে নিশ্চিত ধরে নিতে পারেন তার পেটে ব্যথা হচ্ছে। কারণ দুধ এবং চিনি বেশী খাওয়ার কারণে তাদের পেটে গ্যাস এবং এসিডিটির সমস্যা থাকবেই। শিশুদের পেটের ব্যথা পেটে চাপ দিলে বাড়ে না কমে তা যদি বুঝতে না পারেন, তবে একবার Dioscorea এবং একবার Colocynthis দুটো ঔষধই একত্রে মিশিয়ে খাওয়াতে থাকুন)।
Belladonna : যে-কোনো তীব্র ব্যথা যতক্ষণই থাকুক না কেন, যদি হঠাৎ আসে এবং হঠাৎ চলে যায়, তবে বেলেডোনা ঔষধটি খেতে থাকুন। বেলেডোনা’র ব্যথা সাধারণত শরীরের উপরের দিক থেকে নীচের দিকে যায়।
Nux vomica : নাক্স ভমিকা পেট ব্যথার একটি শ্রেষ্ট ঔষধ। খাওয়া-দাওয়ার কোন গন্ডগোলের কারণে পেট ব্যথা হলে এটি প্রয়োগ করতে হয়। গলব্লাডার বা কিডনী রোগ যে-কারণেই পেট ব্যথা হোক না কেন। শীতকাতর এবং বদমেজাজী লোকদের বেলায় এটি ভালো কাজ করে।
Arsenic album : পচাঁ, বাসি কিংবা বিষাক্ত কোন খাবার-পানীয় খাওয়ার কারণে পেটে ব্যথা হলে আর্সেনিক এক নাম্বার ঔষধ। কাচাঁ কোন ফল খেয়ে পেট ব্যথা হলেও আর্সেনিক খেতে হবে। পেটের ভেতরের কোন ক্যান্সারের কারণে পেট ব্যথা হলেও আর্সেনিক খেতে পারেন।
Ignatia amara : দুঃসংবাদ শোনার পরে অথবা বিরহ-বিচ্ছেদ-ছ্যাকা খাওয়ার কারণে, মনে কষ্ট পাওয়ার কারণে পেটে ব্যথা হলে ইগ্নেশিয়া খেতে হবে।
Teucrium Marum verum : পেটে ব্যথার সাথে যদি মুখে পানি উঠতে থাকে, তবে ক্রিমির ঔষধ খাওয়া উচিত (যেমন- টিউক্রিয়াম)।
Plumbum metallicum : পেট ব্যথার সাথে যদি কোষ্টকাঠিন্য/শক্ত পায়খানা থাকে, তবে প্রথমেই প্লামবাম ঔষধটি খাওয়ার কথা চিন্তা করতে হবে। প্লামবামের পেট ব্যথার লক্ষণ হলো, মনে হবে পেটের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গকে কেউ যেন সুতো দিয়ে বেঁধে পিঠের দিকে টানতেছে।
Stannum metallicum : স্ট্যানাম-এর ব্যথার লক্ষণ হলো হালকা ব্যথা নিয়ে সেটি শুরু হয়, তারপর ধীরে ধীরে ব্যথা বাড়তে বাড়তে চরম পর্যায়ে পৌঁেছ যায় এবং শেষে আবারও ব্যথা আস্তে আস্তে কমতে কমতে পুরোপুরি চলে যায়।
Chamomilla : যদি পেট ব্যথা বা অন্য কোন ব্যথার তীব্রতায় কোন রোগী দিগ্‌বিদিক জ্ঞানশূণ্য হয়ে পড়ে, তার ভদ্রতাজ্ঞানও লোপ পেয়ে যায়, সে ডাক্তার বা নার্সকে পযর্ন্ত গালাগালি দিতে থাকে; তবে তাকে ক্যামোমিলা খাওয়াতে হবে। ক্যামোমিলা হলো অভদ্র রোগীদের ঔষধ। শিক্ষকদের হাতে শিশুরা মার খাওয়ার ফলে এবং কোন কারণে ভীষণ রেগে যাওয়ার ফলে পেট ব্যথা শুরু হলে ক্যামোমিলা খাওয়াতে হবে। যারা ব্যথা একদম সহ্য করতে পারে না, ক্যামোমিলা হলো তাদের ঔষধ। ব্যথার সময় গাল গরম হয়ে যায়, মুখ লাল হয়ে যায় এবং ঘামতে থাকে।
China officinalis : ব্যথা যদি নির্দিষ্ট সময় পরপর একেবারে ঘড়ির কাটা কাটায় আসে, তবে তাতে চায়না প্রযোজ্য। ব্যথা পেটে চাপ দিলে কমে যায়। পেটে প্রচুর গ্যাস হওয়ার কারণে ব্যথা।
Ipecac : পেট ব্যথা সাথে যদি বমিবমি ভাব থাকে, তবে তাতে ইপিকাক প্রযোজ্য। পেট ব্যথা এমন সাংঘাতিক যেন মনে হয় নাড়িভুড়িকে কেউ হাত দিয়ে কচলাচ্ছে।
Magnesia phosphorica : বিজলীর মতো পেট ব্যথা, একবার আসে একবার যায়। ব্যথা চাপ দিলে এবং গরম শেক দিলে কমে। ঠান্ডা বাতাসে বা ঠান্ডা পানি লাগলে ব্যথা বৃদ্ধি পায়।
Veratrum album : মারাত্মক ধরনের পেট ব্যথা ; সাথে বমিবমি ভাব এবং বমি করা থাকে। বরফের মতো ঠান্ডা পানি খেতে চায়। ব্যথার চোটে শরীরে বিশেষত কপালে ঠান্ডা ঘাম দেখা দেয়। হাঁটাহাঁটি করে ব্যথা কমানোর চেষ্টা করে। রোগী খুবই দুর্বল হয়ে পড়ে।
Pulsatilla : গুরুপাক খাবার অর্থাৎ তেল-চর্বি জাতীয় খাবার খাওয়ার কারণে পেট ব্যথা হলে পালসেটিলা খাওয়াতে হবে। গর্ভধারণের কারণে পেট ব্যথা হলেও ইহা প্রযোজ্য।
Cocculus Indicus : ককুলাস হলো মাথা ঘুরানির এক নম্বর ঔষধ। পেট ব্যথার সাথে মাথা ঘুরানি এবং কোষ্টকাঠিন্য থাকলে এটি ভালো কাজ করে।
Cuprum Metallicum : ছুরি মারার মতো মারাত্মক পেট ব্যথা, কিছুক্ষণ পরপর বৃদ্ধি পায়। ঠান্ডা পানি খেলে ব্যথা ভীষণ বেড়ে যায়।
Natrum sulphuricum : পেটে গ্যাস হওয়ার কারণে অর্থাৎ পেট ফাঁপার কারণে পেটে ব্যথা হলে নেট্রাম সালফ প্রযোজ্য। বিশেষত গল ব্লাডারে পাথর বা পিত্তথলির অন্য কোন সমস্যার কারণে পেট ব্যথা হলে, নেট্রাম সালফ খেতে হবে।

Author: bashirmahmudellias

I am an Author, Design specialist, Islamic researcher, Homeopathic consultant.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s