Dr. Bashir Mahmud Ellias's Blog

Know Thyself

সবচাইতে নিকৃষ্ট আল েম

Leave a comment

worst++alem.jpg

মহানবী (সাঃ) বলেছেন, “এমন একটি সময় আসিবে যখন আলেমরা হইবে আকাশের নীচে সবচাইতে নিকৃষ্ট মানুষ” । ইহাতে নবী করীম (সাঃ) সম্ভবত নির্বোধ আলেমদের সম্পর্কেই ঈঙ্গিত করেছেন । সংক্ষেপে বলা যায়, ১৮৫৭ সালের দুনিয়া কাঁপানো সিপাহী বিদ্রোহের পরে ইংরেজ সরকার হাজার হাজার আলেমকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করেছিল এবং হাজার হাজার আলেমকে আন্দামান দ্বীপে নির্বাসনে পাঠিয়েছিল । তারপর থেকেই উপমহাদেশের অধিকাংশ আলেমরা দুনিয়াদারী ত্যাগ করে অনেকটা মসজিদ, মাদ্রাসা, খানকাহমুখী হয়ে পড়েন । ফলে এই যুগের রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, কুটনীতি, সমরনীতি সম্পর্কে তাদের কোন পরিস্কার ধারনা নাই । গত দেড়শ বছরে ইহুদী-খ্রীষ্টানদের দাজ্জালী সভ্যতা যেভাবে পৃথিবীর রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতিকে ধীরে ধীরে সুচতুরভাবে ইসলামের বিরুদ্ধে নিয়ে গেছে, সেই সম্পর্কে আলেমদের গভীর জ্ঞান থাকা জরুরি । বর্তমান পাশ্চাত্য সভ্যতা যে-সব পলিসির মাধ্যমে সাধারণ মুসলমান এবং মুসলিম দেশগুলি নিয়ন্ত্রণ করতেছে, সে-সব কলাকৌশল সমন্ধে আলেমরা অন্ধকারেই আছেন । বর্তমান দাজ্জালী শক্তিসমূহ কোথাও ইসলামী শাসন দেওয়ার নামে, কোথাও গনতন্ত্র দেওয়ার নামে, কোথাও স্বৈরশাসক হটানোর নামে, কোথাও রাজতন্ত্র উৎখাতের নামে, কোথাও শিয়া-সুন্নী-ওহাবীদের দমন করার নামে, কোথাও জাগতিক উন্নতির সাধনের নামে কিভাবে একে একে মুসলিম দেশগুলিকে ধ্বংস করতেছে, ভাইয়ে ভাইয়ে গৃহযুদ্ধ লাগিয়ে মুসলমানদের শক্তি ক্ষয় করতেছে, দুনিয়াবাসীর সামনে মুসলমানদেরকে কান্ডজ্ঞানহীন নির্বোধ / সন্ত্রাসী জাতি হিসাবে প্রমাণ করতেছে, এই সমন্ধে আলেমদের যথেষ্ট অজ্ঞতা রয়েছে । ফলে এই ব্যাপক অজ্ঞতা / অনভিজ্ঞতা নিয়ে তারা যখন ইসলাম ও মুসলমানদের কল্যাণের জন্য কোন কার্য্যক্রম হাতে নেন ; দেখা যায় তাতে ইসলাম ও মুসলমানদের অকল্যাণই বেশী হয়ে যায় । কাজেই বর্তমান মুসলিম সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থাকে পরিবর্তন করে ইসলামের পক্ষে আনার জন্য আলেমরা কোন পদক্ষেপ নেওয়ার সময় তাদের উচিত সমকালীন রাজনীতি, অর্থনীতি, সমাজনীতি, সমরনীতি, কুটনীতি বিষয়ে গভীরভাবে পড়াশোনা করে নেওয়া অথবা এইসব বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিদের সাথে পরামর্শ করে নেওয়া । আধুনিক মুসলিম সমাজ এবং রাষ্ট্র ব্যবস্থায় শত শত বছরে যেই বিকৃতি ঢুকেছে, তাকে যদি কোন আলেম দুয়েক বছরের মধ্যে পরিবর্তন করার পদক্ষেপ নেন, তবে তিনি সমাজ ও রাষ্ট্রকে কেবল ধ্বংসই করতে পারবেন । স্বয়ং মহানবী (সাঃ)-কেও সমাজ ও রাষ্ট্রনীতিকে পরিবর্তন করতে সুদীর্ঘ তেইশ বছর আন্দোলন করতে হয়েছে । বিশ্বনবী (সাঃ) যুদ্ধ করে মক্কা জয় করতে পারতেন কিন্তু তাতে যেমন অসংখ্য কাফের মারা যেতো তেমনি অনেক মুসলমানও প্রাণ হারাতো । এই কারণে তিনি অপমানজনক শর্ত মেনে নিয়েও মক্কার কাফেরদের সাথে শান্তি চুক্তি করেছিলেন । কেননা তিনি তাঁর দূরদৃষ্টিতে বুঝতে পেরেছিলেন যে, মক্কার কাফের গোত্রসমূহের মধ্যকার বর্তমান একতায় খুব শীঘ্রই ফাটল ধরবে । ফলস্রুতিতে এক বছর পরই তিনি বিনা যুদ্ধে মক্কা জয় করতে পেরেছিলেন এবং কাফেররাও তাঁর ক্ষমা ও উদারতায় মুগ্ধ হয়ে ইসলাম গ্রহন করছিল । সমকালীন জনসাধারণ এবং সেনাবাহিনীর মধ্যে ইমাম জাফর সাদেক (রহঃ), ইমাম আবু হানিফা (রহঃ), খাজা নিজামউদ্দিন আওলিয়া (রহঃ) এবং মোজাদ্দেদ আলফেসানী (রহঃ)-এর এত জনপ্রিয়তা ছিল যে, তাঁরা ইচ্ছা করলেই শাসকদেরকে উৎখাত করে নিজেরা ক্ষমতা দখল করতে পারতেন । কিন্তু তাঁরা সাধারণ মুসলমানদেরকে রক্তপাত এবং হানাহানির পথে নিয়ে যাওয়াকে পছন্দ করেন নাই । বরং তাঁরা শাসকদের অত্যাচার সহ্য করেছেন, শাসকদেরকে সদুপদেশ দিয়েছেন, সাধারণ মুসলমান এবং মুসলমান শাসকদের মঙ্গল কামনা করেছেন । ফলস্রুতিতে দেখা গেছে, তাদের প্রজ্ঞা, তাদের ধৈর্য্য, তাদের উদারতার প্রভাবে শাসকরা ধীরে ধীরে সংশোধন হয়ে গেছে । এমনকি ইমাম হোসাইন (রাঃ) যখন বুঝতে পারলেন যে, মাত্র বাহাত্তরজন সঙ্গীসাথী নিয়ে ইয়াজীদের বিশাল সৈন্যবাহিনীর বিরুদ্ধে বিজয়ী হওয়া সম্ভব নয় এবং ইয়াজিদের মূল উদ্দেশ্য হলো একমাত্র তাকেই হত্যা করা (অন্যদেরকে নয়) ; তখন তিনি তাঁর সঙ্গীসাথীদের জীবন রক্ষার জন্য তাদেরকে যুদ্ধক্ষেত্র থেকে চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন । মোটকথা সমাজে শুভ পরিবর্তন আনার উদ্দেশ্যে আলেমদেরকে যে-কোন পদক্ষেপ নেওয়ার পূর্বে খেয়াল রাখতে হবে যেন তাতে ইসলাম ও মুসলমানদের উপকারের চাইতে ক্ষতি বেশী হয়ে না যায় । বাস্তব পরিস্থিতি বিবেচনা করে পদক্ষেপ নিতে হবে ; মাথা গরম করে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে না । অন্যথায় তিনি মহানবীর (সাঃ) দৃষ্টিতে “আকাশের নীচে সবচাইতে নিকৃষ্ট মানুষ” হিসাবে গণ্য হবেন ।

Author: bashirmahmudellias

I am an Author, Design specialist, Islamic researcher, Homeopathic consultant.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s